দ্য রোলারকোস্টার রাইডঃ মেজাজ পরিবর্তন বোঝা ও নিয়ন্ত্রন

কখনও কি মনে হয়েছে আপনি আবেগের এক রোলার-কোস্টার খেলায় আছেন, এক মিনিট 

খুশিতে উড়ছেন, আবার পর মিনিটেই দুঃখের সাগরে ডুব দিচ্ছেন? মুড সুইং একটি সাধারণ অভিজ্ঞতা, এটি কমবেশি সবার উপরই প্রভাব ফেলে। এই ব্লগটি মুড সুইং কী, কেন হয়, এবং কীভাবে এই আবেগের ওঠানামাগুলো মোকাবিলা করবেন, সে সম্পর্কে আলোচনা করবে।

 

মুড সুইং কী? 

মুড সুইং হলো আবেগীয় অবস্থার আকস্মিক ও উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন। এগুলো খুবই সাময়িক হতে পারে, মিনিটখানেক স্থায়ী হতে পারে, আবার দীর্ঘ সময়ের জন্যও থাকতে পারে।  এই আবেগের ওঠা-নামা, খুশি ও উত্তেজনা থেকে রাগ, দুঃখ বা চটচটে মেজাজের মধ্যে দোলাচল করতে পারে।

আমরা কেন মুড সুইং এর মধ্য দিয়ে যাই? 

কয়েকটি কারণ মুড সুইং এর জন্য দায়ী হতে পারে:

  • হরমোনের তারতম্য : হরমোনের পরিবর্তন মুড সুইং এর জন্য একটি প্রধান কারণ, বিশেষ করে মহিলাদের ক্ষেত্রে। ঋতুস্রাব চক্র, গর্ভাবস্থা এবং মেনোপজ – এই সবকিছুই আবেগীয় পরিবর্তনের কারণ হতে পারে।
  • স্ট্রেস : দীর্ঘস্থায়ী মানসিক চাপ আপনার মানসিক স্বাস্থ্যের উপর মারাত্মক প্রভাব ফেলতে পারে, যা মুড সুইং এবং চটচটে মেজাজের দিকে নিয়ে যেতে পারে।
  • ঘুমের অভাব : আপনি যখন ঘুমের অভাবে ভোগেন, তখন আপনার মস্তিষ্ককে আবেগ নিয়ন্ত্রণ করতে বেগ পেতে হয়, ফলে আপনি মুড সুইং এর প্রতি বেশি সংবেদনশীল হয়ে ওঠেন।
  • খাদ্যাভাস : আপনি কী খান তা আপনার মেজাজকে প্রভাবিত করতে পারে। মিষ্টি জাতীয় খাবার খেলে রক্তে শর্করার তারতম্য মুড সুইং এর কারণ হতে পারে
  • চিকিৎসাগত সমস্যা : থাইরয়েডের সমস্যা, রক্তশূন্যতা এবং ডিপ্রেশন সহ কিছু কিছু চিকিৎসাগত সমস্যা মুড সুইং এর কারণ হতে পারে।
  • ঔষধ : কিছু ঔষধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া মুড সুইং এর কারণ হতে পারে।

মুড সুইংকে এর কারণের উপর ভিত্তি করে শ্রেণীবদ্ধ করা যায়

প্রি-মাসিক সিন্ড্রোম (পিএমএস): অনেক নারী ঋতুস্রাবের কয়েক দিন আগে মুড সুইং, চটচটে মেজাজ এবং উদ্বেগ অনুভব করেন। 

পেরিনাটাল মুড সুইং: গর্ভাবস্থায় হরমোনের পরিবর্তন মুড সুইং এর দিকে নিয়ে যেতে পারে, অন্যদিকে প্রসূতি পরবর্তী হতাশাও আবেগের ওঠানামার কারণ হতে পারে।

মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যা : মুড সুইং হলো বাইপোলার ডিসঅর্ডার এবং বর্ডারলাইন পারসোনালিটি ডিসঅর্ডার সহ বিভিন্ন মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যার একটি লক্ষণ। এই সমস্যাগুলো সাধারণত আরও প্রবল এবং দীর্ঘস্থায়ী মুড সুইং এর সাথে জড়িত থাকে।

সাধারণ মুড সুইং : প্রত্যেকে মাঝে মাঝে এমন মুড সুইং এর মধ্য দিয়ে যায় যার কোনো স্পষ্ট কারণ নাও থাকতে পারে। এগুলি সাধারণত খুব বেশি সময় স্থায়ী হয় না এবং দৈনন্দিন জীবনে উল্লেখযোগ্যভাবে বিঘ্ন সৃষ্টি করে না। 

মুড সুইং নিয়ন্ত্রণ :

মুড সুইং সম্পূর্ণভাবে দূর করা না গেলেও, এগুলো নিয়ন্ত্রণের কিছু উপায় রয়েছে:

  • স্বাস্থ্যকর অভ্যাস গড়ে তোলা : নিয়মিত ব্যায়াম, সুষম খাদ্যাভ্যাস এবং পর্যাপ্ত ঘুম আবেগিক সুস্থতা বৃদ্ধি করে এবং মুড সুইং কমায়।
  • স্ট্রেস ম্যানেজমেন্ট কৌশল : মুড সুইং এর অন্যতম প্রধান কারণ হলো স্ট্রেস। মেডিটেশন বা গভীর শ্বাস-প্রশ্বাসের মতো কৌশল অনুশীলন করে স্ট্রেস মোকাবিলা করা যায়
  • আপনার মেজাজ ট্র্যাক করুন : একটি মুড জার্নাল রাখা আপনাকে আপনার মুড সুইং এর ধরণ এবং কারণগুলো চিহ্নিত করতে সাহায্য করতে পারে। 
  • সাহায্য চান : আপনার আবেগ নিয়ন্ত্রণে সাহায্যের জন্য বন্ধু, পরিবার বা থেরাপিস্টের সাথে কথা বলুন। 

কখন পেশাদার সাহায্য নেওয়া উচিত :

যদি আপনার মুড সুইংগুলি মারাত্মক ও দীর্ঘস্থায়ী হয় বা আপনার দৈনন্দিন জীবনে বাধা সৃষ্টি করে, তাহলে পেশাদার সাহায্য নেওয়া জরুরি। একজন থেরাপিস্ট আপনাকে মূল কারণটি চিহ্নিত করতে এবং মোকাবিলা করার পদ্ধতি সম্পরকে অবহিত করে সাহায্য করতে পারেন। 

মনে রাখুন : মুড সুইং স্বাভাবিক। তবে, যদি এগুলো আপনার সুস্থতায় উল্লেখযোগ্যভাবে প্রভাব ফেলে, তাহলে সাহায্য নিতে দ্বিধা করবেন না।  স্ব-যত্ন, স্বাস্থ্যকর অভ্যাস এবং প্রয়োজনে পেশাদার সমর্থন নিয়ে, আপনি আবেগিক ওঠানামা নিয়ন্ত্রণ করতে এবং একটি সুষম জীবনযাপন করতে শিখতে পারবেন। 

References:

https://www.everydayhealth.com/emotional-health/how-manage-mood-swings-naturally/

https://www.verywellmind.com/what-are-mood-swings-1067178

https://www.medicalnewstoday.com/articles/mood-swings

https://www.healthline.com/health/rapid-mood-swings

এম. ডি. মাহিন

স্বাস্থ্য অর্থনীতি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় 

 

LEAVE REPLY

Your email address will not be published. Required fields are marked *