মানসিক শান্তিতে আমার দুষ্ট- মিষ্টি কাজ

করোনা- এ যেন এক বিভীষিকার নাম। ছোট্ট শিশু থেকে বৃদ্ধ সবাই এর আতঙ্কে অস্থির। যেহেতু নিজে সচেতন ও নিরাপদ দুরত্ব বজিয়ে রাখলে এই মহামারীটি থেকে নিজেকে বাঁচানো যায় তাই আজ মানুষ ঘরেই অবস্থান করছে। ছোট্ট শিশুটি যে কিনা খেলনা ছাড়া আর কিছুই বোঝে না সেও আজ জানে যে বাইরে যাওয়া বারণ। সমগ্র পৃথিবীর সাথে তাল মিলিয়ে তাই আমি ও নিজের পরিবারেকে নিরাপদে রাখতে বাড়িতেই অবস্থান করছি। সেই মার্চ মাস থেকে আজ অবধি ঘরে বন্দি। সকল পরিস্থিতি বোঝা সত্ত্বেও এই চঞ্চল মন ঘরে বন্দি থাকতে চায় না। কিছুতেই মন বসতে চায় না। কারণ ওই যে, স্কুলে যাওয়া নেই, তার মানে বন্ধুদের সাথে দেখা নেই, ঘোরাঘুরি নেই, নেই কোনো আড্ডা, নেই লাইব্রেরিতে যেয়ে বইয়ের রাজ্যে ডুবে থাকা, তাহলে কি আর ভালো লাগে? তবু ও নিজেকে মানসিকভাবে শান্তি দিতে আপ্রাণ চেষ্টা করি। যেহেতু আমি বই পড়তে ভালোবাসি তাই দিনের অনেকটা সময় কাটাই প্রিয় বন্ধু বইয়ের সাথে।আর এখন তো স্কুলের পড়ার চাপ নেই তাই এই সুযোগে জমিয়ে রাখা বইগুলোর অনেকাংশই পড়ে ফেলেছি। বইয়ের সাথে সময় কাটানো কিন্তু আসলেই অনেক মজার। স্কুলের পড়ার চাপে অনেক মুভি দেখতে পারিনি বলে গুছিয়ে রেখে ছিলাম। এখন অনেক সময় তাই জমিয়ে রাখা মুভির ভাণ্ডারেও কিছুটা সময় পার করছি। ওমা! এতো কিছু বললাম কিন্তু বলায় হয়নি লকডাউনের এই সময়ে আমি আর আমার বড় আপু মিলে ইউটিউবে দেখে আর মায়ের কাছে শুনে এরই মধ্যে মজার খাবার তৈরি করেছি। সত্যি বলতে কি, যখন সবাই তৈরি করা খাবারটা খেয়ে অনেক প্রশংসা করে তখন এতো খুশি লাগে যে মনে হয় খুশিতে লাফাই। এদিকে নিজেকে ব্যস্ত রাখতে কাগজ দিয়ে ঘর সাজানোর জিনিস তৈরি করি, যেগুলো স্কুল খোলা থাকলে কখনোই হয়ে ওঠে না। নিজের মনের মতো ছবি আঁকি। কারণ ছবি আঁকলে মনটা একদম টনিকের মতো ভালো হয়ে যায়। আবার আমাদের না একটা ছোট্ট পুকুর আছে, মাছ আছে ভালোই। মন বেশি খারাপ থাকলে একটা ছিপ নিয়ে সোজা পুকুরে চলে যায় মাছ ধরতে। যদিও মাছগুলো অনেক দুষ্টু, একদমই ধরা দিতে চায় না। তবুও ছিপ নিয়ে বসতে অনেক মজা লাগে। মাকে ও অনেক কাজে সাহায্য করি। মা অনেক খুশি হয় সাহায্য করলে, তখন নিজের কাছে ও ভালো লাগে। আর এই তো এভাবেই এই কঠিন মুহূর্তে আমি নিজেকে মানসিকভাবে স্থিতিশীল রাখছি। কিন্তু, দিনশেষে আমি অনেক ভালো আছি। কারণ- আমি তো শুধু ঘরে বন্দি। কতো মানুষ যে এই ঘরে বন্দি থেকে অনাহারে ভুগছে দিনের পর দিন। আমার তো সেই কষ্ট আর হাহাকার নেই। তাহলে আর মন খারাপ কিসের?

Samiha Khan
School/College Student
GB092

LEAVE REPLY

Your email address will not be published.