আমি যেভাবে কোয়ারেন্টাইন এর মাঝে নিজেকে মানসিকভাবে স্থিতিশীল রাখছি

 

জীবন মানেই যুদ্ধ, জীবন মানেই আনন্দ। জীবন মানেই বেদনা। 2020 নেমে আসলো করোনা ভাইরাস নামে এক আতঙ্ক। করোনা ভাইরাস নিয়ে যখন মিডিয়াতে একটু একটু লেখালেখি এবং নিউজ হচ্ছে। আমি ছিলাম কোয়ান্টাম কসমো স্কুল এন্ড কলেজে আমাদেরকে  আমল দিয়েছে সকালেে একটা করে রসুন , কালোজিরা, দোয়া ইউনুস পড়া, আমাদের বলছে করোনা ভাইরাস  নিয়ে কোন ভয়ের কিছু নেই।তারপর কিছুদিন পর চলে আসলাম আমাদের বাড়িতে বান্দরবান জেলার আলীকদম উপজেলায়় আমার বাড়ির। দেখলাম চারপাশের মানুষের এত আতঙ্ক, কি করা হঠাৎ বুদ্ধি  এলো আমি ফেসবুকে একটা ভিডিও আপলোড দিয়়  করোনা ভাইরাস নিয়ে ভয়ের কিছু নেই প্রয়োজন সচেতনতা। জীবনেের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়় হচ্ছে রুটিন অনুসরণ করা। তারপর আমি একটা রুটিন করলাম। একদিন বিকেলে বাজারে গেলাম দেখি চারপাশেে আবর্জনা স্তুপ গন্ধ ছড়াচ্ছে অনেক। আমি চিন্তা করতে লাগলাম কি করা যায় তারপর কয়েকজন বন্ধুকে ইনভাইট করলাম। আমরা সকলে মিলে বাজার পরিষ্কার করব যে কথা সেই কাজ। প্রথমে  ফেসবুকে নিউজ দিয়েছি কারা কারা সমাজের কল্যাণে আগামী এত তারিখ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নন কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করতে এই নির্দিষ্টট জায়গায়, এরকম করে তিনটা বাজার পরিষ্কার করা হলো। মানুষ বুঝতে চেষ্টাটা করেছি পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার গুরুত্ব। এরপর সিদ্ধান্ত নিলাম মাননীয়় প্রধানমন্ত্রীকে একটা স্মারকলিপি লিখব পরিষ্কার পরিছন্নতা বিষয়টি সরকার আইন হিসেবে জারি করে। তারপর রুটিন করে পড়ালেখা শুরু করলাম।

 

আমি মনে করি জীবনের অস্থিরতা দূর করার জন্য প্রয়োজন রুটিন অনুসরণ।জীবনে যে ব্যক্তি সময় অনুসরণ করবে  জীবনে অনেক দূর এগিয়ে যেতে পারবে নিজের মনকে স্থির করতে পারবে।

 

তাই আমি বলি প্রতিটি মুহূর্ত মানুষের কল্যাণে কাজে লাগাও প্রতিটি মুহূর্ত হোক ইতিবাচক চিন্তা সুন্দর কথা এবং ভালো আচরণের মাধ্যমে হয়ে উঠবো আমরা সকলে ভালো মানুষ।

 

Md. Mohiuddin Jim
School & College Student
GB048

LEAVE REPLY

Your email address will not be published.